ইন্টারনেট অব থিংস (আইওটি) নিয়ে মাহবুবুর রহমানের নতুন বই

জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড কর্তৃক অনুমোদিত দেশের সবচেয়ে বেশি পঠিত মাহবুবুর রহমান প্রণীত একাদশ ও দ্বাদশ শ্রেণির ‘তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি’ বই

রিসোর্স মেনুর অধ্যায় ভিত্তিক টপিকস সাব মেনুর অধীনে রয়েছে অসংখ্য ভিডিও লেকচার

প্রযুক্তি আলো-র প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক ও কম্পিউটার বিষয়ক লেখক মাহবুবুর রহমান ছাত্রীদেরকে প্রোগ্রামিং শিক্ষা কার্যক্রম পরিদর্শন করছেন

প্রযুক্তি আলো-র একজন সদস্য ছাত্রীদের প্রোগ্রামিং শেখাচ্ছেন

কলেজ প্রাঙ্গনে ”প্রযুক্তি আলো” টিম

সিরাজগঞ্জ জেলার বিভিন্ন কলেজের আইসিটি শিক্ষকদের সেমিনারে প্রধান আলোচক হিসাবে বক্তব্য রাখছেন লেখক মাহবুবুর রহমান

চাঁদপুর জেলার ৬৯টি কলেজের আইসিটি শিক্ষকদের সেমিনারে প্রধান আলোচক হিসাবে বক্তব্য রাখছেন লেখক মাহবুবুর রহমান

নাটোর জেলার বিভিন্ন কলেজের আইসিটি শিক্ষকদের অনুষ্ঠানে বক্তব্যরত লেখক মাহবুবুর রহমান

 

নিউজ

বের হয়েছে! বের হয়েছে!! সিসটেক এর ‘ইন্টারনেট অব থিংস’ বই

বর্তমান সময়ের অন্যতম জনপ্রিয় ইন্টারনেট নির্ভর প্রযুক্তি হলো ‘ইন্টারনেট অব থিংস’ বা IoT যা নিয়ে ইদানিংকালে ব্যাপক আলোচনা চলছে।

এটি মূলত একটি কম্পিউটার কনসেপ্ট যেখানে প্রতিটি কম্পিউটারকে একসাথে যুক্ত রাখার ব্যাপারে কাজ করা হয় এবং নিত্যদিনের ব্যবহৃত সব ধরনের ফিজিক্যাল ইলেকট্রনিক্স যন্ত্রাদিগুলোকে ইন্টারনেটের সাথে সংযুক্ত রাখাকে বুঝায়।

এই বিষয়টি নিয়ে অমর একুশে বইমেলা ২০২০ এ বাংলাদেশের জনপ্রিয় তথ্যপ্রযুক্তি বিষয়ক বইয়ের লেখক মাহবুবুর রহমান বের করেছেন চমৎকার একটি বই ‘ইন্টারনেট অব থিংস’। বইটি প্রকাশ করেছে সিসটেক পাবলিকেশন্স। বইমেলা প্রাঙ্গনের ৪২৭-৪২৮ নং স্টলে বইটি পাওয়া যাচ্ছে।


বইটিতে রয়েছে:
– প্রাত্যহিক জীবনে IoT এর ব্যবহারের কল্পচিত্র
– IoT যেভাবে কাজ করে তার বর্ণনা
– ইন্টারনেট অফ থিংস-এর ভবিষ্যৎ
– বহুল ব্যবহৃত জনপ্রিয় ২০টি আইওটি ডিভাইস সম্পর্কে বর্ণনা
– নিজে নিজে স্মার্ট সিলিং ফ্যান ও লাইট স্থাপন করার নিয়ম
– আইওটি হার্ডওয়্যার ও সফটওয়্যার সম্পর্কে বর্ণনা
– স্মার্ট হোম, স্মার্ট অফিস, স্মার্ট হেলথ, স্মার্ট কৃষি এবং শিক্ষায় আইওটি (IoT)-এর ব্যবহার নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা
– আইওটি-এর সাথে সম্পর্কিত বিষয় যেমন- ইন্টারনেট, কম্পিউটার নেটওয়ার্কিং, ক্লাউড – কম্পিউটিং, কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ও এক্সপার্ট সিস্টেম নিয়ে আলোচনা
– গুরুত্বপূর্ণ IoT কমিউনিকেশন প্রটোকল সম্পর্কে বর্ণনা
– নিরাপত্তায় আইওটি-এর ব্যবহার নিয়ে আলোচনা

বইটির শেষে যুক্ত প্রজেক্টে হাতে-কলমে দেখানো হয়েছে কীভাবে মাত্র ৮০০ টাকা খরচ করে আইওটি ডিভাইসের মাধ্যমে হোম অটোমেশন করা যায়।

বইটিতে বহুল ব্যবহৃত আইওটি ডিভাইস NodeMCU এর সাথে বাসার লাইট ও ফ্যানের সুইচ-এর কানেকশন যুক্ত করে এবং একটি টেম্পারেচার সেন্সর যুক্ত করে মোবাইলে Blynk অ্যাপটি ডাউনলোড করে স্মার্ট ফোনের মাধ্যমে রিমোটলি কন্ট্রোল করা এবং কীভাবে বাসার তাপমাত্রা জানা যায় তা দেখানো হয়েছে।

এছাড়াও উক্ত আইওটি ডিভাইসটি কীভাবে কোড লিখে কন্ট্রোল করা যায় তা দেখাতে গিয়ে Arduino IDE ডাউনলোড করে ইন্সটল করে এর আইডিই-তে প্রোগ্রাম কোড লিখে ডিভাইসে তা ট্রান্সফার করা যায় তা দেখানো হয়েছে।

চমৎকার এই বইটির মূল্য রাখা হয়েছে ২৮০ টাকা।


বের হয়েছে! বের হয়েছে!! সিসটেক এর ‘তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি’ বই

বাংলাদেশের সর্বাধিক ১৪০টি আইসিটি বইয়ের লেখক মাহবুবুর রহমান কর্তৃক প্রণীত জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড কর্তৃক অনুমোদিত (স্মারক নং শি.স/৮২/২০১৪/৬৯৬ তারিখ : ২০/০৬/২০১৬ ইং) বইয়ের আলোকে ২০১৯-২০২০ শিক্ষাবর্ষ থেকে একাদশ দ্বাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থীদের অধিক প্রশিক্ষণের জন্য বিশেষভাবে প্রণীত ‘তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি’ বইটি এখন বাজারে।

নতুন প্রকাশিত বইটির বৈশিষ্ট্যসমূহ:

  • ৫৯২ পৃষ্ঠার সম্পূর্ণ রঙিন বই।
  • ৯টি বোর্ডের বিগত সালের প্রশ্ন এবং দেশের সেরা দুই শতাধিক কলেজের গত কয়েক বছরের নির্বাচনী পরীক্ষার সব প্রশ্নের উত্তর যাতে পাওয়া যায় সেভাবে প্রণীত।
  • একই প্রশ্ন সৃজনশীল ধারায় বিভিন্নভাবে আসার নির্দেশনা টিপস এবং উত্তর।
    জটিল বিষয়কে বাস্তব উদাহরণ দিয়ে সহজভাবে উপস্থাপন।
  • অধিক বুঝার জন্য বিশেষ বিষয়সমূহের আলাদা শেড বক্সের ভিতরে নোট।
    অধ্যায় শেষে বিভিন্ন বিষয়ের ওভারভিউ ও তুলনামূলক ছক।
  • প্রয়োজনীয় বিভিন্ন বিষয় বিস্তারিতভাবে বুঝার জন্য অতিরিক্ত তথ্য প্রদান।
    বিশ্ব এবং বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে সাম্প্রতিক আইসিটি তথ্য। যেমন-বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট, আইওটি, রোবট সুফিয়া, ড্রোন ইত্যাদি।
  • টপোলজি সংক্রান্ত টিপস
  • সংখ্যা পদ্ধতি রূপান্তরের বিকল্প সহজ পদ্ধতি, যে কোন ভিত্তিক সংখ্যা পদ্ধতিকে অন্য ভিত্তিক সংখ্যা পদ্ধতিতে রূপান্তর।
  • এক নজরে সব সংখ্যা পদ্ধতি।
  • ডিজিটাল পদ্ধতি কিভাবে কাজ করে তার বাস্তব উদাহরণ এবং বিভিন্ন লজিক গেইটের বাস্তব ব্যবহার।
  • ৭৭টি এইচটিএমএল উদাহরণ কোড।
  • এইচটিএমএল এ বিভিন্নভাবে টেবিল তৈরি উদাহরণ।
  • ব্যাখ্যাসহ সবাধিক ১৫০ সি প্রোগ্রাম কোড।
  • সব অধ্যায়ের জ্ঞানমূলক প্রশ্নোত্তর।
  • for, while, do-while এর পাশাপাশি if এবং goto ব্যবহার করে সিরিজসহ অন্যান্য প্রোগ্রাম লেখা।
  • ডেটাবেজ অধ্যায়ে প্রশ্নে বেশি আসা বিভিন্ন কুয়েরি স্টেটমেন্ট।
  • সি প্রোগ্রামের বিভিন্ন টপিকস এর সাথে উদাহরণ প্রোগ্রাম সংযোজন।
  • ইনপুট-আউটপুট সংক্রান্ত ৪২টি সূত্রের সাহায্যে সব ধরণের ইনপুট-আউটপুট প্রোগ্রাম উদাহরণ।
  • কঠিন প্রোগ্রামগুলোর বাস্তব উদাহরণসহ বিস্তারিত ব্যাখ্যা।
  • ডেটাবেজের বিভিন্ন বিষয়কে সহজ উপস্থাপন। উদাহরণসহ এসকিউএল কুয়েরির বিভিন্ন বিষয়ের সহজ উদাহরণ।
  • বইটির সাথে একটি সহায়ক ডিভিডি সংযোজিত রয়েছে।

বের হয়েছে! বের হয়েছে!! সিসটেক এর ‘সার্টিফিকেট ইন কম্পিউটার অফিস অ্যাপ্লিকেশন’ বই

শুধুমাত্র কম্পিউটার প্রকাশনায় খ্যাত ‘সিসটেক পাবলিকেশন্স’ থেকে সম্প্রতি ‘সার্টিফিকেট ইন কম্পিউটার অফিস অ্যাপ্লিকেশন’ বইটি প্রকাশিত হয়েছে। বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ড কর্তৃক প্রবর্তিত নতুন সিলেবাস অনুযায়ী জাতীয় দক্ষতামান বেসিক ট্রেড ৩৬০ ঘণ্টা (৩/৬ মাস) মেয়াদি কোর্সের শিক্ষার্থীদের জন্য বইটি রচিত। বইটি সরকারি বেসরকারি সকল ভর্তি পরীক্ষায় আইসিটি বিষয়ের প্রশিক্ষণ উপযোগী। স্বনামধন্য আইসিটি লেখক মাহবুবুর রহমান রচিত এই বইটি তাত্ত্বিক, ব্যবহারিক, ইংরেজি ও বোর্ড প্রশ্ন সম্বলিত। পরীক্ষায় ভালো ফলাফলের জন্য বইটি বিশেষভাবে রচিত। এতে কম্পিউটার এবং অপারেটিং সিস্টেম, ওয়ার্ড প্রসেসিং, স্প্রেডশিট অ্যানালাইসিস,মাইক্রোসফট পাওয়ারপয়েন্ট, ডেটাবেজ ম্যানেজমেন্ট, ইমেইল এবং ইন্টারনেট বিষয়গুলোকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। ৪৮৮ পৃষ্ঠার এই বইটির মূল্য ২৭২ টাকা মাত্র।

একুশে বইমেলা ২০১৮ তে পাওয়া যাচ্ছে সিসটেক এর নতুন বই “ডিজিটাল কনটেন্ট”

এবারের একুশের বইমেলায় শুধুমাত্র আইসিটি পুস্তক প্রকাশনার ক্ষেত্রে দেশের সর্ববৃহৎ প্রতিষ্ঠান সিসটেক পাবলিকেশন্স থেকে “ডিজিটাল কনটেন্ট” বইটি প্রকাশিত হয়েছে। বইমেলা প্রাঙ্গণে সিসটেকের ২৮৮-২৮৯ নং স্টলে বইটি পাওয়া যাচ্ছে।


মাল্টিমিডিয়া ক্লাসরুম পরিচালনার জন্য সবচাইতে বড় উপকরণ হলো ডিজিটাল কনটেন্ট তৈরি করা। নিজে নিজে যেন ডিজিটাল কনটেন্ট তৈরি করা যায় সেই দিকটি বিবেচনায় নিয়ে মূলত এই বইটি প্রকাশ করা হয়েছে। শিক্ষাকে ডিজিটাল পদ্ধতিতে আকর্ষণীয় করে অডিও, ভিডিও এবং অ্যানিমেশনের মাধ্যমে উপস্থাপন করে শিক্ষাদানের জন্য প্রয়োজন পর্যাপ্ত ডিজিটাল কনটেন্ট। কিন্তু পর্যাপ্ত প্রশিক্ষণ না পাওয়ায় আমাদের সম্মানিত শিক্ষকগণ নিজেরা ডিজিটাল কনটেন্ট তৈরি করতে পারছেন না। অথচ শিক্ষা সম্পর্কিত সকল বিষয়ের ডিজিটাল কনটেন্ট তৈরি করা সম্ভব। এই অসুবিধা দূর করতেই বইটিতে হাতে কলমে ডিজিটাল কনটেন্ট তৈরি করার নিয়ম দেখানো হয়েছে। যারা কম্পিউটারের প্রাথমিক জ্ঞানসম্পন্ন তারা এ বইটি অনুসরণ করে নিজে নিজেই মানসম্পন্ন ডিজিটাল কনটেন্ট তৈরি করতে পারবেন।

আশা করা যায়, এই বইটি বাংলাদেশের বিভিন্ন প্রান্তে থাকা সকল শিক্ষক-শিক্ষিকাকে ডিজিটাল কনটেন্ট তৈরি করতে প্রয়োজনীয় সহায়তা দিতে ব্যাপকভাবে সক্ষম হবে।

দেশের জনপ্রিয় আইসিটি বিষয়ক লেখক মাহবুবুর রহমান রচিত ২২৪ পৃষ্ঠার বইটির মূল্য ২৫০ টাকা।

একুশে বইমেলা ২০১৮ তে পাওয়া যাচ্ছে সিসটেক এর নতুন বই “PLC এবং ইন্ডাস্ট্রিয়াল অটোমেশন”
এবারের একুশের বইমেলায় শুধুমাত্র আইসিটি পুস্তক প্রকাশনার ক্ষেত্রে দেশের সর্ববৃহৎ প্রতিষ্ঠান সিসটেক পাবলিকেশন্স থেকে “PLC এবং ইন্ডাস্ট্রিয়াল অটোমেশন” বইটি প্রকাশিত হয়েছে। বইমেলা প্রাঙ্গণে সিসটেকের ২৮৮-২৮৯ নং স্টলে বইটি পাওয়া যাচ্ছে।


আধুনিক উৎপাদন ব্যবস্থায় ব্যবহৃত সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ যন্ত্রগুলোর একটি হল PLC। এর পূর্ণ নাম Programmable Logic Controller। বর্তমানে প্রায় প্রতিটি উন্নত কলকারখানাতে PLC ব্যবহৃত হচ্ছে। প্রতিযোগিতার বাজারে টিকে থাকার জন্য আগে যেসব কারখানায় PLC ব্যবহৃত হতো না সে সব জায়গায়ও এখন ধীরে ধীরে PLC ব্যবহার করে উন্নতমানের অটোমেশন যুক্ত সিস্টেম বাস্তবায়ন করা হচ্ছে।

কিন্তু দেশে PLC নিয়ে কাজ করার মত পর্যাপ্ত জনশক্তি গড়ে উঠেনি। তাই ছোট ছোট সমস্যা সমাধান করার জন্যও অনেক সময় কোম্পানিগুলোকে বিদেশীদের উপর নির্ভর করতে হচ্ছে। PLC সম্বন্ধে জ্ঞান সম্পন্ন মানুষের চাহিদা ইন্ডাস্ট্রিতে দিনকে দিন বেড়ে চলেছে। এখন বেশির ভাগ ইন্ডাস্ট্রিতে বি.এস.সি অথবা ডিপ্লোমা প্রকৌশলী নিয়োগ দেওয়ার সময় প্রার্থীর PLC সম্বন্ধে জ্ঞানের পরীক্ষা নেওয়া হয়। এজন্য আমাদের দেশের অনেকের PLC নিয়ে জানার আগ্রহ রয়েছে। কিন্তু বাংলা ভাষায় PLC এর উপর কোনো বই ইতোপূর্বে লেখা হয়নি। তাই বাংলায় PLC এর উপর এ বইটি প্রকাশিত হওয়ায় শিক্ষার্থীরা PLC এর উপর জ্ঞান অর্জন করে ইন্ডাস্ট্রিগুলোর অটোমেশন উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারবে।

ইলেক্ট্রনিক্স এবং মাইক্রোকন্ট্রোলারের উপর বাংলা ভাষায় লিখিত অনেক ভালো বই পাওয়া যায়। যার ফলে বাংলাদেশের অনেকে মাইক্রোকন্ট্রোলার ভিত্তিক এমবেডেড সিস্টেম ডিজাইন, রোবোটিক্স এ খুব ভালো করছে। কিন্তু বিভিন্ন ভারী শিল্পকারখানার ইলেক্ট্রিক্যাল বা অটোমেশনের কাজ সম্পর্কে তাদের ধারণা তৈরি হচ্ছে না। এজন্য এই বইটিতে শিল্প কারখানাতে ব্যবহার করা বিভিন্ন বিষয় যেমন থ্রি ফেজ পাওয়ার সিস্টেম, ইন্ডাকশন মোটর, ইথারনেট এবং প্রফিবাস কমিউনিকেশন সিস্টেম ইত্যাদি নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে যা শিক্ষার্থীদেরকে ভারী শিল্পে কাজ করার জন্য প্রস্তুত করে তুলবে। বইটিকে শুধুমাত্র PLC এবং অটোমেশনের বই হিসাবে নয় শিল্পকারখানার ইলেক্ট্রিক্যাল কাজ শিখার প্রথম বই হিসাবে ব্যবহার করা যাবে।

স্বাগত ভট্টাচার্য্য রচিত ২২৪ পৃষ্ঠার বইটির মূল্য ২৮০ টাকা।

সিসটেক থেকে বের হয়েছে মাস্টার’স প্রোগ্রামের ‘তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি’ বই
নতুন বই (ডিসেম্বর, ২০১৭)

দেশের স্বনামধন্য আইসিটি পুস্তক প্রকাশনা সংস্থা সিসটেক পাবলিকেশন্স থেকে সম্প্রতি জনপ্রিয় আইসিটি বইয়ের লেখক মাহবুবুর রহমান এর রচিত মাস্টার্স’র প্রোগ্রামের ‘তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি’ বইটি প্রকাশিত হয়েছে।

বইটির বৈশিষ্ট্যসমূহ:

  • জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের মাস্টার’স প্রোগ্রামের ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য সম্পূর্ণ নতুন সিলেবাস অনুয়ায়ী বইটি রচিত।
  • বইটিতে তথ্যের উপস্থাপন এমনভাবে করা হয়েছে যাতে শিক্ষার্থীরা তথ্য প্রযুক্তির সাথে সহজভাবে সম্পৃক্ত হতে পারে, আবার অর্জিত এ কর্মমুখী বিদ্যা বাস্তব জীবনে কাজে লাগিয়ে আত্মকর্মসংস্থানের পথ খুঁজে নিতে পারে।
  • পাঠ্যক্রমকে সহজবোধ্য করার জন্য বইটির তাত্ত্বিক অংশে পর্যাপ্ত উদাহরণের মাধ্যমে বিষয় বিশ্লেষণ করা হয়েছে।
  • ব্যবহারিক অংশে ধাপে ধাপে করণীয় কার্যাবলি বর্ণনা করা হয়েছে যাতে শিক্ষার্থীরা অনায়াসে বিষয়সমূহ অনুধাবন করতে পারে।
  • ওয়েবসাইট ডেভেলপমেন্ট এর বিষয়ে বিশেষভাবে আলোচনা করা হয়েছে।

৮০৮ পৃষ্ঠার এই বইটির মূল্য ৩৭২ টাকা।

বের হয়েছে সিসটেক এর উচ্চ মাধ্যমিক “মেইড ইজি টু টেস্ট পেপারস” এবং “টেস্ট পেপারস উইথ সাজেশন্স”
নতুন বই (ডিসেম্বর, ২০১৭)

উচ্চ মাধ্যমিক শ্রেণির (সাধারণ ও আলীম) শিক্ষার্থীদের জন্য সম্প্রতি বাজারে এসেছে সিসটেক পাবলিকেশন্স থেকে প্রকাশিত “মেইড ইজি টু টেস্ট পেপারস” এবং “টেস্ট পেপারস উইথ সাজেশন্স” দুটি বইয়ের একটি যুগ্ম প্যাকেজ। বই দুটি দেশের সকল শিক্ষা বোর্ডের ২০১৮ সালের পরীক্ষার্থীদের জন্য রচিত একটি সৃজনশীল অনন্য অনুশীলনমূলক বই। টেস্ট পেপারস বইটির সাথে মেইড ইজি বইটি সম্পূর্ণ বিনামূল্যে পাওয়া যাচ্ছে। বইগুলোতে দেশের সেরা কলেজ ও মাদ্রাসাসমূহের নির্বাচনী পরীক্ষার প্রশ্ন ও সমাধান রয়েছে।


টেস্ট পেপারসটির বৈশিষ্ট্যঃ

  • দেশের সেরা কলেজ এবং মাদরাসাসমূহের টেস্ট পরীক্ষার প্রশ্নোত্তর।
  • সৃজনশীল ও এমসিকিউ প্রশ্নোত্তর
  • ১৩০০ এর অধিক সৃজনশীল প্রশ্নসমূহ হতে গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্নের অধ্যায়ের টপিকভিত্তিক সাধারণ প্রশ্ন ও উত্তরের জন্য পৃথক মেইড ইজি বই (সম্পূর্ণ ব্যতিক্রমধর্মী এ পদ্ধতির কারণে শিক্ষার্থীরা সহজেই শিখতে পারবে)।
  • সহজ ও সাবলিল ভাষায় রচিত।
  • বোর্ডের সর্বশেষ নীতিমালা অনুসরণ করে রচিত।
  • মাস্টার ট্রেইনার প্রশিক্ষণে প্রদত্ত গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন সংবলিত।

জনপ্রিয় আইসিটি লেখক মাহবুবুর রহমান এর রচনা ও সম্পাদনায় মেইড ইজি (ফ্রি) সহ সম্পূর্ণ প্যাকেজের বইয়ের মূল্য রাখা হয়েছে ৩২০ টাকা।

মাহবুবুর রহমান রচিত উচ্চ মাধ্যমিক তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ের ব্যবহারিক বই এখন বাজারে
নতুন বই (আগস্ট সংস্করণ, ২০১৭)

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ক দেশের সর্ববৃহৎ প্রকাশনা প্রতিষ্ঠান সিসেটক পাবলিকেশন্স সম্প্রতি জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড কর্তৃক সিলেবাস অনুযায়ী রচিত এবং জনপ্রিয় লেখক মাহবুবুর রহমান কর্তৃক প্রণীত ‘তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি’ বইটির ব্যবহারিক অংশের বইটি বাজারে এনেছে । একাদশ-দ্বাদশ শ্রেণির সাধারণ ও আলীম শ্রেণির জন্য রচিত এই বইটি মূলত শিক্ষার্থীদের মেধা বিকাশ এবং পরীক্ষায় যথাযথভাবে উত্তর দেয়ার মতো করে সাজানো হয়েছে। ২২২ পৃষ্ঠার এই বইটির মূল্য ১২০ টাকা।
(http://www.systechpublications.com.bd/থেকে অনলাইনে অর্ডার করলে ৩০% কমিশন। বিস্তারিত ওয়েবে)

২০১৮ ও ২০১৯ সালের পরীক্ষার্থীদের জন্য বাজারে সিসটেক থেকে প্রকাশিত উচ্চ মাধ্যমিকের “প্রশ্নোত্তরে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি ”
রচনায়ঃ দেশের শীর্ষস্থানীয় কলেজসমূহের শিক্ষক-শিক্ষিকাবৃন্দ
শ্রেণীঃ একাদশ-দ্বাদশ
পৃষ্ঠাঃ ৬৯৪
মূল্যঃ ৩৯৮ টাকা
(http://www.systechpublications.com.bd/থেকে অনলাইনে অর্ডার করলে ৩০% কমিশন। বিস্তারিত ওয়েবে)

উচ্চ মাধ্যমিক তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বইটির সৃজনশীল এক্সক্লুসিভ অনুশীলনমূলক বই এটি। বইটি এনসিটিবি অনুমোদিত বাজারের সর্বাধিক প্রচলিত সব বইয়ের প্রশ্নের সমাধান সংবলিত। বইটি একাদশ-দ্বাদশ শ্রেণীর সাধারণ ও আলিম শিক্ষার্থীদের জন্য রচিত। ২০১৮ ও ২০১৯ সালের পরীক্ষার্থীদের জন্য ব্যবহারিকসহ বইটি ভিন্ন আয়োজনে সাজানো হয়েছে। গুণেমানে বাজারের সেরা এ বইটির বৈশিষ্ট্যগুলো হলোঃ

  • NCTB অনুমোদিত বাজারে সর্বাধিক প্রচলিত সব বইয়ের সৃজনশীল ও নৈর্ব্যক্তিক প্রশ্নের সঠিক উত্তর সংবলিত।
  • বোর্ডের সর্বশেষ সৃজনশীল প্রশ্নের নীতিমালা অনুসরণ করে বইটি রচিত।
  • বিষয়বস্তু অনুসারে প্রতিটি অধ্যায়ের সম্ভাব্য সৃজনশীল প্রশ্ন সংযোজন।
  • STEP প্রোগ্রামের সৃজনশীল ও MCQ প্রশ্নোত্তর
  • মডেল প্রশ্ন, সাজেশন্স এবং সলিউশন
  • মাস্টার ট্রেইনার কর্তৃক সৃজনশীল ও MCQ প্রশ্নোত্তর
  • ব্যবহারিক অংশ সংযোজন।
  • দেশের শীর্ষস্থানীয় কলেজসমূহের সমাপনী পরীক্ষার প্রশ্নোত্তর

মাহবুবুর রহমান এর উচ্চ মাধ্যমিক ‘তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি’ বইটি এখন বাজারে
নতুন বই (জুন সংস্করণ, ২০১৭ পৃষ্ঠা: ৫৫২)

বাংলাদেশের সর্বাধিক ১২০টি আইসিটি বইয়ের লেখক মাহবুবুর রহমান কর্তৃক প্রণীত জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড কর্তৃক অনুমোদিত (স্মারক নং শি.স/৮২/২০১৪/৬৯৬ তারিখ : ২০/০৬/২০১৬ ইং) বইয়ের আলোকে ২০১৭-২০১৮ শিক্ষাবর্ষ থেকে একাদশ দ্বাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থীদের অধিক প্রশিক্ষণের জন্য বিশেষভাবে প্রণীত। বইটির সাথে দুটি সহায়ক সিডি সংযোজিত রয়েছে যেখানে বইয়ের বিষয়গুলোকে টেক্সট, আডিও, ভিডিও, অ্যানিমেশন, পাওয়ারপয়েন্ট স্লাইডের মাধ্যমে ইন্টারঅ্যাকটিভ উপায়ে উপস্থাপন করা হয়েছে।

বইটির বৈশিষ্ট্য :

    • ৯টি বোর্ডের ২০১৭ এর প্রশ্ন এবং ২৫০টি সেরা কলেজের চূড়ান্ত নির্বাচনী প্রশ্নের সব প্রশ্নের উত্তর যাতে পাওয়া যায় সেভাবে প্রণীত।
    • একই প্রশ্ন সৃজনশীল ধারায় বিভিন্নভাবে আসার নির্দেশনা টিপস এবং উত্তর।
    • বাজারে প্রকাশিত সব বইয়ের চেয়ে বেশি প্রশ্ন এবং এমসিকিউ প্রশ্নের উত্তর সংবলিত।
    • অধিক বুঝার জন্য বিশেষ বিষয়সমূহের আলাদা শেড বক্সের ভিতর নোট।
    • অধ্যায় শেষে বিভিন্ন বিষয়ের ওভারভিউ ও তুলনামূলক ছক।
    • প্রয়োজনীয় বিভিন্ন বিষয় বিস্তারিতভাবে বুঝার জন্য অতিরিক্ত তথ্য প্রদান।
    • সি প্রোগ্রামিং এর বিভিন্ন টপিকসের সাথে উদাহরণ প্রোগ্রাম সংযোজন।
    • প্রোগ্রামিং এর উদাহরণ, হিন্টস, ব্যবহারিকসহ সর্বাধিক ১০৭টি সি প্রোগ্রাম।
    • ইনপুট আউটপুট সংক্রান্ত ৪২টি সূত্রের সাহায্যে সব ধরনের ইনপুট আউটপুট প্রোগ্রাম উদাহরণ।
    • কঠিন প্রোগ্রামগুলোর বাস্তব উদাহরণসহ বিস্তারিত ব্যাখ্যা। (যেমন- লসাগু, গাসাগু)
    • ডেটাবেজের বিভিন্ন বিষয়কে রিরাইট করে আরো সহজভাবে উপস্থাপন। উদাহরণসহ SQL কুয়েরির বিভিন্ন বিষয়ের সহজ উপস্থাপন।
    • এমসিকিউ প্রশ্নের উত্তরসহ ২০১৭ সালের ৯টি বোর্ডের প্রশ্ন সম্বলিত।
    • ডিজিটাল কন্টেন্ট হিসাবে সম্পূর্ণ বইয়ের ইন্টারএ্যাকটিভ মাল্টিমিডিয়া সিডি এবং ওয়েবে তথ্য (www.ictshikkha.org) প্রদান। যা বাংলাদেশে শিক্ষা ক্ষেত্রে এক অনন্য সংযোজন এবং মাইলফলক।
    • বই ছাড়াও সম্পর্কিত আইসিটি বিষয়ক বিভিন্ন প্রশ্নের সার্বক্ষণিক অনলাইন সলুশন সেবা প্রদান (www.ictshikkha.org) ।
  • এনসিটিবি কর্তৃক অনুমোদিত বই এবং উক্ত বইয়ের বর্ধিত সংস্করণ।

স্মার্টকার্ড যুগে বাংলাদেশ
আইরিশের প্রতিচ্ছবি এবং দশ আঙ্গুলের ছাপ দিয়ে নিজের ‘স্মার্টকার্ড’ নেওয়ার মধ‌্য দিয়ে বাংলাদেশের নাগরকিদের হাতে উন্নতমানের জাতীয় পরিচয়পত্র পৌঁছে দেওয়ার কার্যক্রম উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ২ অক্টোবর ২০১৬ তে রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে স্মার্টকার্ড বিতরণ কার্যক্রমের উদ্বোধন করে তিনি বলেছেন, “আমাদের জাতীয় জীবনে আজ এক নতুন অধ্যায়ের সূচনা হতে যাচ্ছে।”

দেশের প্রায় ১০ কোটি ভোটারের মধ্যে মোটামুটি নয় কোটির হাতে লেমিনেটেড জাতীয় পরিচয়পত্র রয়েছে। বিভিন্ন নাগরিক সুবিধা পেতে এই জাতীয় পরিচয়পত্রের অনুলিপি জমা দেওয়ার বাধ্যবাধকতা রয়েছে। তাদের সেই পুরনো পরিচয়পত্র ফিরিয়ে নিয়ে ২০১৭ সালের ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে সব নাগরিকের হাতে স্মার্টকার্ড বিতরণের লক্ষ্য ঠিক করেছে নির্বাচন কমিশন।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “জাতীয় পরিচয়পত্র যাতে কেবল ভোটারের জন্য নয়, বহুবিধ ব্যবহার যেন হয়, সে সুযোগ সৃষ্টির জন্য আমরা উদ্যোগ নিয়েছি। নাগরিক হিসাবে সঠিক সেবাটা ঠিকমতো নেওয়ার জন্য এই পরিচয়পত্র।”

যেসব তথ‌্য থাকবে স্মার্টকার্ডে: নাগরিকের নাম, বাবার নাম, মায়ের নাম, পেশা, স্থায়ী ঠিকানা, বর্তমান ঠিকানা, বয়স, জন্মতারিখ, রক্তের গ্রুপ, লিঙ্গ, বৈবাহিক অবস্থা, দৃশ্যমান শনাক্তকরণ চিহ্ন, ধর্ম, জন্মস্থান, জন্ম নিবন্ধন সনদ, শিক্ষাগত যোগ্যতা, ড্রাইভিং লাইসেন্স নম্বর, পাসপোর্ট নম্বর, আয়কর সনদ নম্বর, টেলিফোন নম্বর, মা-বাবার জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বর, স্বামী বা স্ত্রীর নাম ও পরিচয়পত্র নম্বর, প্রতিবন্ধী হলে সেই তথ্য স্মার্টকার্ডে থাকবে।

যেভাবে বিতরণ: প্রথম পর্যায়ে ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন ও কুড়িগ্রাম; দ্বিতীয় পর্যায়ে খুলনা, চট্টগ্রাম, রাজশাহী, বরিশাল, সিলেট, নারায়ণগঞ্জ, কুমিল্লা, রংপুর ও গাজীপুর সিটি করপোরেশন; তৃতীয় পর্যায়ে ৬৪টি সদর উপজেলা এবং চতুর্থ পর্যায়ে বাকি সব উপজেলায় দেশজুড়ে স্মার্টকার্ড বিতরণ করা হবে। যাদের লেমিনেটেড জাতীয় পরিচয় নেই তারা নির্ধারিত স্লিপ দিয়ে এনআইডি নম্বর জেনে বিতরণ কেন্দ্রে গেলেই স্মার্টকার্ড দেওয়া হবে। নির্ধারিত সময়ে গণমাধ্যমে বিজ্ঞপ্তি দিয়ে এবং মাইকিং, ব্যানার, ফেস্টুন দিয়ে প্রচারের মাধ‌্যমে বিতরণের দিন তারিখ ও স্থান জানিয়ে দেবে নির্বাচন কমিশন।

ব‌্যবহার: আয়কর দাতা শনাক্তকরণ নম্বর (টিআইএন) প্রাপ্তি, ড্রাইভিং লাইসেন্স নম্বর প্রাপ্তি ও নবায়ন, পাসপোর্ট প্রাপ্তি ও নবায়ন, চাকরির জন্য আবেদন, স্থাবর সম্পত্তি কেনা-বেচা, ব্যাংক হিসাব খোলা ও ঋণ প্রাপ্তি, সরকারি বিভিন্ন ভাতা উত্তোলন, সরকারি ভর্তুকি, সাহায্য, সহায়তা প্রাপ্তি, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভর্তি, বিমানবন্দরে ই-গেইট এর মাধ্যমে আগমন ও বহির্গমন সুবিধা, শেয়ার আবেদন ও বিও অ‌্যাকাউন্ট খোলা, ট্রেড লাইসেন্স প্রাপ্তি, যানবাহন রেজিস্ট্রেশন, বিয়ে ও তালাক রেজিস্ট্রেশন, গ্যাস, বিদ্যুৎ, পানি সংযোগ গ্রহণ, মোবাইল ও টেলিফোন সংযোগ গ্রহণ, বিভিন্ন ধরনের ই-টিকেটিং, সিকিউরড ওয়েব লগ ইন, ই-ফরম পূরণে নাগরিকের সঠিক ও নির্ভুল তথ্য স্বয়ংক্রিয়ভাবে সংযোজনের কাজে ১০ ডিজিটের এই স্মার্টকার্ড ব‌্যবহার করা যাবে।

ডায়াল ১০৫: জাতীয় পরিচয়পত্র সংক্রান্ত যে কোনো তথ্য জানাতে একটি হেল্প ডেস্ক খুলেছে এআইডি উইং। যে কোনো ফোন থেকে ১০৫ নম্বরে কল করে নাগরিকদের তথ্য জানাবে জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন বিভাগের কর্মকর্তারা।

সূত্র: বিডিনিউজ২৪.কম

বের হয়েছে!! বের হয়েছে!!! সিসটেক এসএসসি ভোকেশনাল টেস্ট পেপারস্ এন্ড সলিউশন্স (নবম শ্রেণি)
২০১৬ সালের এসএসসি ভোকেশনাল (নবম শ্রেণি) পরীক্ষার্থীদের জন্য বইটি রচিত হয়েছে। সৃজনশীল প্রশ্নের আলোকে রচিত এটি একটি এক্সক্লুসিভ অনুশীলনমূলক বই। এর বিশেষ বৈশিষ্ট্যগুলোর মধ্যে রয়েছেঃ

    • SSC ভোকেশনাল নবম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের জন্য এটি একটি পূর্ণাঙ্গ টেস্ট পেপারস্ এন্ড সলিউশন্স।
    • বিগত বছরের বোর্ড পরীক্ষায় এসেছে এমন সব ধরনের প্রশ্নোত্তর সংযোজন করা হয়েছে।
    • আবশ্যিক বিষয়ঃ বাংলা, ইংরেজি, গণিত, বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয়, পদার্থবিজ্ঞান, রসায়ন, ইসলাম ও নৈতিক শিক্ষা, কমপিউটার এপ্লি­কেশন, ইঞ্জিনিয়ারিং ড্রয়িং, শারীরিক শিক্ষা, স্বাস্থ্যবিজ্ঞান ও খেলাধুলা এবং কৃষিশিক্ষা সব ক’টি বিষয় একত্র করে Part by Part সাজানো হয়েছে।
    • সৃজনশীল প্রশ্নের সহায়ক অতিরিক্ত প্রশ্নোত্তর সংযোজন করা হয়েছে যা  থেকে ১০০% কমন পড়ার সম্ভাবনা রয়েছে।
    • সহজ, সরল, প্রাঞ্জল ভাষায় প্রশ্নোত্তর লিখিত।
    • পরীক্ষায় এ প্লাস গ্রেড পাওয়ার উপযোগী করে সব ধরনের উত্তর সাজানো হয়েছে।
  • প্রশ্ন সেটার ও বোর্ড পরীক্ষকগণের সমন্বয়ে প্রতিটি বিষয়ে শতভাগ নির্ভরযোগ্য সাজেশন সংযোজন করা হয়েছে।

বইটির মূল্য রাখা হয়েছে ৫২০ টাকা।

বের হয়েছে!! বের হয়েছে!!! সিসটেক এসএসসি ভোকেশনাল টেস্ট পেপারস্ এন্ড সলিউশন্স (দশম শ্রেণি)
২০১৭ সালের এসএসসি ভোকেশনাল (দশম শ্রেণি) পরীক্ষার্থীদের জন্য বইটি রচিত হয়েছে। সৃজনশীল প্রশ্নের আলোকে রচিত এটি একটি এক্সক্লুসিভ অনুশীলনমূলক বই। এর বিশেষ বৈশিষ্ট্যগুলোর মধ্যে রয়েছেঃ

    • SSC ভোকেশনাল দশম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের জন্য এটি একটি পূর্ণাঙ্গ টেস্ট পেপারস্ এন্ড সলিউশন্স।
    • বিগত বছরের বোর্ড পরীক্ষায় এসেছে এমন সব ধরনের প্রশ্নোত্তর সংযোজন করা হয়েছে।
    • আবশ্যিক বিষয়ঃ বাংলা, ইংরেজি, গণিত, বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয়, পদার্থবিজ্ঞান, রসায়ন, ইসলাম ও নৈতিক শিক্ষা, কমপিউটার এপ্লি­কেশন, আত্মকর্মসংস্থান ও ব্যবসায় উদ্যোগ, শারীরিক শিক্ষা, স্বাস্থ্যবিজ্ঞান ও খেলাধুলা এবং কৃষিশিক্ষা সব ক’টি বিষয় একত্র করে Part by Part সাজানো হয়েছে।
    • বাংলা, বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয়, রসায়ন, পদার্থবিজ্ঞান, ইসলাম ও নৈতিক শিক্ষা ও কৃষিশিক্ষা সৃজনশীল প্রশ্নের আলোকে রচিত।
    • সৃজনশীল প্রশ্নের সহায়ক অতিরিক্ত প্রশ্নোত্তর সংযোজন করা হয়েছে যা  থেকে ১০০% কমন পড়ার সম্ভাবনা রয়েছে।
    • সহজ, সরল, প্রাঞ্জল ভাষায় প্রশ্নোত্তর লিখিত।
    • পরীক্ষায় এ প্লাস  গ্রেড পাওয়ার উপযোগী করে সব ধরনের উত্তর সাজানো হয়েছে।
  • প্রশ্ন সেটার ও বোর্ড পরীক্ষকগণের সমন্বয়ে প্রতিটি বিষয়ে শতভাগ নির্ভরযোগ্য সাজেশন সংযোজন করা হয়েছে।

চমৎকার এই বইটির মূল্য রাখা হয়েছে ৫২০ টাকা।


“উচ্চ মাধ্যমিক বাংলা ব্যাকরণ ও নির্মিতি” বইটি এখন বাজারে
বইটি ২০১৭ ও ২০১৮ সালের উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীদের জন্যে জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড কর্তৃক প্রদত্ত সর্বশেষ সিলেবাসের আলোকে রচিত। ড. জিন্নাত রেহানা, শফিউল আজম জুয়েল এবং ভাস্কর সেনগুপ্ত রচিত এই বইটি শিক্ষার্থীদের সর্বোচ্চ শিখন উপযোগী করে রচিত হয়েছে। ব্যাকরণ ও নির্মিতির সকল গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলো এতে স্থান পেয়েছে। সিসটেক পাবলিকেশন্স কর্তৃক প্রকাশিত ৯১৮ পৃষ্ঠার এই বইটির মূল্য রাখা হয়েছে ৪৫০ টাকা।

“উচ্চ মাধ্যমিক বাংলা ব্যাকরণ ও নির্মিতি (বাংলা দ্বিতীয় পত্র)” – পরীক্ষার প্রস্তুতিমূলক বইটি এখন বাজারে
বইটি ২০১৭ ও ২০১৮ সালের উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীদের জন্যে জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড কর্তৃক প্রদত্ত সর্বশেষ সিলেবাসের আলোকে রচিত। বইটিতে ব্যাকরণ, পারিভাষিক শব্দ ও অনুবাদ, বৈদ্যুতিক চিঠি, ক্ষুদে বার্তা ও পত্রলিখন, সংলাপ, ক্ষুদে গল্প ও প্রবন্ধ রচনা, সারাংশ, সারমর্ম ও ভাব-সম্প্রসারণ, দিনলিপি, অভিজ্ঞতা, ভাষণ ও প্রতিবেদন অত্যন্ত চমৎকারভাবে শিক্ষার্থীদের উপযোগী করে লেখা হয়েছে। পরীক্ষার প্রস্তুতিমূলক এই বইটি মূলত বিগত সালগুলোর বোর্ডের প্রশ্নপত্রের আলোকে সমাধানসহ রচিত হয়েছে। পরীক্ষায় সর্বাধিক কমন পেতে বইটি অতুলনীয়। সিসটেক পাবলিকেশন্স কর্তৃক প্রকাশিত বইটির মূল্য রাখা হয়েছে ৩৫০ টাকা।

আটলান্টিকের তলদেশে উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন ইন্টারনেট রুট
ব্যবহারকারীদের দ্রুত ও নির্ভরযোগ্য সেবা দিতে আটলান্টিক মহাসাগরের তলদেশ দিয়ে উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন কেবল ইন্টারনেট সংযোগ তৈরির ঘোষণা দিয়েছে মার্কিন প্রযুক্তি জায়ান্ট মাইক্রোসফট ও ফেসবুক।

ছয় হাজার ৬শ’ কিলোমিটার দীর্ঘ সমুদ্রের তলদেশ দিয়ে নির্মিত ‘মারিয়া’ (এমএআরইএ) নামে এ কেবল রুটের মাধ্যমে যুক্ত হবে যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপের দক্ষিণাংশ। এর মাধ্যমে গুরুত্বপূর্ণ ইন্টারনেট ‘হাব’ হিসেবে পরিচিত যুক্তরাষ্ট্রের ভার্জিনিয়া থেকে শুরু করে স্পেনের বিলবাও পৌঁছাতে এ ইন্টারনেট সংযোগ ইউরোপ, আফ্রিকা, মধ্যপ্রাচ্য এবং এশিয়াকেও সংযুক্ত করবে।

৮টি কেবলের মাধ্যমে সমুদ্র তলদেশের এ সংযোগে প্রতি সেকেন্ডে ডাটা ট্রান্সফারের ক্ষমতা হবে ১৬০ টেরাবাইট। যা এ যাবতকালে সবচেয়ে দ্রুত ইন্টারনেট সংযোগ বলে উভয় প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে।

আগামী আগস্ট থকে নতুন এ সংযোগের কাজ শুরু হয়ে ২০১৭ সাল নাগাদ শেষে হবে বলে আশা করা হচ্ছে। এ কাজে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে স্পেনের টেলিকম প্রতিষ্ঠান টেলিফোনিকাকে। আর নির্মাণ কাজ শেষে এটি পরিচালনা ও তত্ত্বাবধান করবে স্প্যানিশ অবকাঠামো নির্মাতা প্রতিষ্ঠান টেলজিয়াস।

তবে এ প্রকল্পে কতো ব্যয় হবে সে বিষয়ে কিছু জানা যায়নি।

তথ্যসূত্র: http://www.banglanews24.com/

সিসটেকের প্রযুক্তি বিষয়ক বই ও সংশ্লিষ্ট তথ্যপ্রযুক্তি সেবাসমূহ ঘরে বসে পাবার জন্য ই-কমার্স সুবিধাসম্পন্ন ওয়েব পোর্টালের উদ্বোধন

গত ১২ই মার্চ শনিবার সকাল ১১:৩০ মিনিটে বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটির সাধারন সম্পাদক, তথ্য প্রযুক্তিবিদ জনাব মুনির হাসান, বেসিস মিলনায়তনে, সিসটেক পাবলিকেশন্সের বই ও তথ্য প্রযুক্তি সংশ্লিষ্ট সেবাসমূহ পাবার জন্য তৈরিকৃত ওয়েব পোর্টাল www.systechpublications.com.bd এর উদ্বোধন করেন। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ জ্ঞান ও সৃজনীল প্রকাশক সমিতির সহ-সভাপতি এবং অন্যপ্রকাশের প্রধান নির্বাহী জনাব মাজহারুল ইসলাম। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন সিসটেক ডিজিটাল লিঃ এর ম্যানেজিং ডিরেক্টর ও প্রধান নির্বাহী এবং বেসিস এর সহ সভাপতি জনাব এম রাশিদুল হাসান। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সিসটেক পাবলিকেশন্সের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবং সিসটেক ডিজিটালের লিমিটেড এর চেয়ারম্যান, বাংলাদেশ ও পশ্চিমবঙ্গের জনপ্রিয় আইসিটি লেখক, উচ্চমাধ্যমিক আইসিটি বইয়ের প্রণেতা জনাব মাহবুবুর রহমান।


প্রোগ্রামের ভিডিও দেখতে ক্লিক করুন

তথ্য প্রযুক্তিবিদ ও বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটির সাধারণ সম্পাদক জনাব মুনীর হাসান বলেন “প্রকৃতপক্ষে সিসটেক বাংলা ভাষায় কমপিউটার শিক্ষার এক নীরব বিপ্লবের সূচনা করেছিল নব্বইয়ের দশকে। আজ বাংলাদেশে, একেবারে অজ পাড়াগাঁয়ের থেকে উঠে আসা এমন অসংখ্য মধ্যবয়স্ক কমপিউটার প্রফেশনাল পাওয়া যাবে, যারা আজাকের প্রজন্মেকে আইসিটি ক্ষেত্রে বলিষ্ঠভাবে প্রয়োজনীয় নেতৃত্ব দিতে পারলেও, এই সমস্ত তথ্য প্রযুক্তি পেশাজীবিদের কাছে এক সময় কমপিউটার শেখার জন্য একমাত্র যে মাধ্যমটি ছিলো, সেটি হলো সিসটেক পাবলিকেশন্সের বাংলায় লেখা কমপিউটার বিষয়ক বইগুলো। প্রতিষ্ঠার পর থেকে এ পর্যন্ত, প্রায় ২১ বছর যাবৎ সিসটেক যে হাজারো চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করে, বাংলাদেশের তৃণমূলে নীরবে তথ্য প্রযুক্তির বই ও আরও নানান সেবা দিয়ে যাচ্ছে আমার কাছে তা বিস্ময়কর এবং ব্যাপক অনুপ্রেরণামুলক। আজ এখানে, সিসটেক পাবলিকেশন্সের যে ওয়েব পোর্টালটি আমি উদ্বোধন করলাম, আমার দৃঢ় বিশ্বাস এটি ডিজিটাল বাংলাদেশেকে তার স্বপ্ন পূরণের পথ অনেকগুলো ধাপ এগিয়ে যেতে সাহায্য করবে।”

বিশেষ অতিথির ভাষণে বাংলাদেশ জ্ঞান ও সৃজনীল প্রকাশক সমিতির সহ-সভাপতি এবং অন্যপ্রকাশের প্রধান নির্বাহী জনাব মাজহারুল ইসলাম বলেন “তথ্য প্রযুক্তির বইগুলোকে অনলাইনের মাধ্যমে এবং ই-বুক আকারে দেশের সর্বত্র ছড়িয়ে দেবার এই প্রয়াসটি দেশের মানুষকে আবার বই কেনার জন্য উৎসাহিত করবে। বর্তমানের তরুণ প্রজন্ম অনেক বেশী প্রযুক্তি নির্ভর হয়ে পড়ায় কাগজে ছাপানো বইয়ের তুলনায় ই-বুক ফরমেটের বই ব্যবহারে অনেক বেশী স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করে। প্রকাশনা শিল্পের অনেকে এই বিষয়টিকে নেতিবাচক ভাবে নিলেও আমি প্রযুক্তি নির্ভর বইয়ের এই নতুন ফরমেটের বাজারটি সম্পর্কে বেশ আশাবাদী। ওয়েব পোর্টালের ফ্রি ই-বুক বিতরণের মাধ্যমে বরং প্রকারান্তরে ছাপার বইয়ের প্রতি পাঠকের আগ্রহ ফিরিয়ে আনা সম্ভব। সিসটেক পাবলিকেশন্সের এই মহতী উদ্যোগের জন্য প্রতিষ্ঠানটির প্রতি আমার শুভ কামনা রইল।”

সিসটেক ডিজিটালর লিঃ এর ম্যানেজিং ডিরেক্টর ও প্রধান নির্বাহী এবং বেসিস এর সহ সভাপতি জনাব এম রাশিদুল হাসান তাঁর বক্তব্যে বলেন “বাংলাদেশের প্রযুক্তিপ্রেমী জনগোষ্ঠীর কাছে দীর্ঘসময় ধরে সিসটেক অত্যন্ত জনপ্রিয় একটি নাম হিসেবে প্রায় ব্রান্ড পর্যায়ের খ্যাতি অর্জন করেছে। দেশে যখনই তথ্য প্রযুক্তির যে কোন নতুন বিষয়ের আগমন ঘটেছে সিসটেক সর্বাগ্রে তা দেশের তৃণমল পর্যায়ের জনগোষ্ঠীর কাছে পৌঁছে দেবার ব্যবস্থা করেছে। সিসটেকের বই, মাল্টিমিডিয়া সিডি, বিভিন্ন সময়ে ডেভলপ করা নানা রিসোর্স ওয়েব সাইট, সফটওয়্যার প্রভৃতি বিভিন্ন মাধ্যমে দেশের আপামর জনগোষ্ঠীকে প্রযুক্তির যে কোন নতুন বিষয় সম্পর্কে পরিচিত করবার এই অন্যন্য প্রয়াসের কারণে সিসটেক বহুবার দেশে ও বিদেশে ব্যাপকভাবে প্রশংসিত হয়েছে। ওয়েব সাইটের মাধ্যমে সিসটেকের এই তথ্য প্রযুক্তি সেবা দেশের আরও বেশী জনগোষ্ঠীকে আমাদের কার্যক্রমের সুফল পেতে সহায়তা করবে।

অনুষ্ঠানের সভাপতি সিসটেক পাবলিকেশন্সের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিসটেক ডিজিটাল লিমিটেডের চেয়্যারম্যান জনাব মাহবুবুর রহমান সভাপতির ভাষণে বলেন “সিসটেক পাবলিকেশন্স তার জন্মলগ্ন থেকেই এদেশের সাধারণ জনগোষ্ঠীর নিকট মাতৃভাষায় সহজ, সরল ও তাদের বোধগম্য করে কমপিাউটার ও প্রযুক্তির বিভিন্ন বিষয়গুলো শেখানোর উদ্দেশ্যে প্রযুক্তি বিষয়ক বিভিন্ন্ বই, মাল্টিমিডিয়া কন্টেন্ট, প্রিন্ট ও ডিজিটাল মাধ্যম পত্রিকা ও প্রোগ্রাম, ওয়েব সাইটে নানা শিক্ষামুলক রিসোর্স বিনামূল্যে প্রভৃতি একের পর এক অসংখ্য উদ্যোগ নিয়ে গেছে। কেবল ব্যবসায়িক উদ্দেশ্য সিদ্ধি নয়, সিসটেকের জন্য এটি ছিল দেশের মানুষকে সেবা করারও একটি বিষয় বলে আমি মনে করি। সিসটেক একুশ বছর যাবৎ সর্বদাই মনে রাখার চেষ্টা করেছে যে প্রতিষ্ঠানটির উপর দেশে তথ্য প্রযুক্তি সচেতন জনগোষ্ঠী তৈরির এক অলিখিত দায়িত্ব রয়েছে, যা সাধ্যমতো সততার সাথে পালন করতে হবে। সিসটেক যেন সর্বদাই বাংলাদেশের সাধারন মানুষের জন্য সেবা মনোভাব বজায় রেখে তার কার্যক্রম চালাতে পারে সেজন্য আপনাদের সহযোগীতা প্রত্যাশা করি।”

অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন সিসটেকের যুক্তরাষ্ট্র প্রতিনিধি মোহাম্মদ উল্লাহ সুমন।

অনুষ্ঠানটি সঞ্চালন ও সিটেকের ওয়েব পোর্টালটির অতিথিদের সামনে উপস্থাপনা করেন সিসটেক পাবলিকেশন্সের এডিটর ও মাল্টিমিডিয়া ডেভলপার রাজিব আহমেদ।

“আইসিটি অভিধান” বইটি এখন বাজারে

বর্তমানে ৬ষ্ঠ শ্রেণি থেকে দ্বাদশ শ্রেণি পর্যন্ত তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়টি আবশ্যিক করা হয়েছে। এছাড়া অনার্স এবং মাস্টার্সেও আইসিটি বিষয়টি অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের আইসিটি বিষয়ে বিভিন্ন তথ্য সহজেই হাতের নাগালে পাওয়ার জন্য এই অভিধানটি প্রকাশ করা হয়েছে। বাংলা ভাষায় এটিই এ জাতীয় প্রথম উদ্যোগ।

অভিধানটিতে কম্পিউটার, ইন্টারনেট, নেটওয়ার্ক ইত্যাদি বিভিন্ন বিষয়ের পাশাপাশি তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়টিকেও অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। বাজারে প্রচলিত প্রায় সব আইসিটি বইয়ের প্রয়োজনীয় বিভিন্ন বিষয় সম্পর্কে যা বইয়ে বিস্তারিত লেখা হয়নি সেসব বিষয় এবং অন্যান্য আরও অনেক বিষয় সম্পর্কে অ্যালফাবেটিক্যালি সাজানো প্রায় সাত সহস্রাধিক শব্দের এক বিশাল সম্ভাব এটি যা থেকে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর পাবেন।

অভিধানটির মাধ্যমে ৬ষ্ঠ শ্রেণি থেকে মাস্টার্স শ্রেণি পর্যন্ত অধ্যয়নরত আইসিটির শিক্ষার্থীরা উপকৃত হবেন। পাশাপশি শিক্ষক-শিক্ষিকারাও উপকৃত হবেন। জনপ্রিয় আইসিটি লেখক মাহবুবুর রহমান রচিত ৬০৮ পৃষ্ঠার এ বইটির মূল্য রাখা হয়েছে ৩০০ টাকা।

“স্মার্টফোনের বহুমুখী ব্যবহার” বইটি এখন বাজারে
আপনার প্রিয় স্মার্টফোনটি কী শুধুই কথা বলার একটি যন্ত্র? তা মোটেই না। কথা বলার বাইরেও স্মার্টফোন দিয়ে বহুবিধ কাজ করা সম্ভব। প্রযুক্তি নির্ভর এই বিশ্বে স্মার্টফোন তাই নিয়ে এসেছে অভাবনীয় সব সুযোগ। এই বইটিতে সেই সুযোগগুলোকে কাজে লাগানোর বিষয়গুলোতে তুলে ধরা হয়েছে। বইটি পড়ে পাঠক স্মার্টফোনের নানা ধরনের ব্যবহার সম্পর্কে অবগত হতে পারবেন। বইটিতে ডিজিটাল জীবনের নানা ক্ষেত্রে স্মার্টফোনের প্রয়োগ দেখানো হয়েছে আর সবই হাতে-কলমে। বইটিতে দেখানো ব্যবহারগুলো শিখে আপনি নিজেই চমকিত হবেন।

বর্তমানে স্মার্টফোন ব্যবহারকারীদের মধ্যে অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেম চালিত ফোনের ব্যবহারকারীর সংখ্যাই বেশি। অন্ততপক্ষে দেশে যত সংখ্যক স্মার্টফোন বিক্রি হয় তার সিংহভাগই অ্যান্ড্রয়েড চালিত। সেদিকে লক্ষ্য রেখে বইটিতে অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেমকেই প্রাধান্য দেয়া হয়েছে। তবে কিছু ক্ষেত্রে উইন্ডাজ ফোন ও আইওএস কেও তুলে ধরা হয়েছে।

বইটিতে স্মার্টফোনের বহুমুখী ব্যবহার সম্পর্কে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলো উপস্থাপন করা হয়েছে। যেমনÑ মোবাইল ফোন ও ট্যাবে ডেটা আদান-প্রদান করা, অ্যান্ড্রয়েড ফোনকে মাউস হিসেবে ব্যবহার করা, অ্যান্ড্রয়েড থেকেই কম্পিউটারকে নিয়ন্ত্রণ করা, ফোনের লাইভ স্ক্রিন রেকর্ড করা, স্ক্রিন লক হিসেবে ফিঙ্গারপ্রিন্ট ব্যবহার করা, মোবাইল ফোনে ক্লাউডের ব্যবহার, স্মার্টফোনকে স্ক্যানার কাম ওসিআর বানানো, ভয়েস ও ভিডিও কল করা ইত্যাতির মতো আরও অসংখ্য গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। একেবারে সাধারণ ব্যবহারকারীদের প্রতি লক্ষ্য রেখে হাতে-কলমে শেখানোর মতো করে বইটিতে বিভিন্ন বিষয়গুলো আলোচিত হয়েছে।

বইটিতে বাহুল্যতাকে একেবারেই পরিহার করা হয়েছে। মুনিরুল হাসান রচিত ২২৪ পৃষ্ঠার এ বইটির মূল্য রাখা হয়েছে ২০০ টাকা।

“ইমেজ প্রসেসিং এবং রোবটিক ভিশন” বইটি এখন বাজারে
রোবটিক্সে “ভিশন” শব্দটি নিয়ে আজকাল খুব আলোড়ন চলছে। রোবটের বিভিন্ন রকম সেন্সিং এ অনেক ধরনের সেন্সর ব্যবহার করা হয়। রোবটকে মানুষ সেই সব ক্ষমতা দেয়ার চেষ্টা করে যেগুলো মানুষের অনুরূপ। মানুষের মত করেই তাই রোবটকে দৃষ্টি দেয়ার প্রচেষ্টা থেকেই রোবটিক ভিশন এর সূত্রপাত। আর এর সাথে অঙ্গাঙ্গীভাবে জড়িয়ে আছে ইমেজ প্রসেসিং। মূলত রোবট ক্যামেরা দিয়ে যা দেখে সেটিকে বিশ্লেষণ করে করে সে পথ চলে। অর্থাৎ তাকে পথ চলতে ইমেজ প্রসেসিং করতে হয়।

বইটিতে ইমেজ প্রসেসিং টুল হিসেবে ব্যবহৃত হয়েছে ম্যাটল্যাব। এর ইমেজ প্রসেসিং টুলবক্স অনেক বেশি সমৃদ্ধ। রোবটিক্স গবেষণাকে দেশীয় উৎসাহী এবং গবেষকদের মধ্যে আরেক ধাপ এগিয়ে নিতে এই বইটি অনেক বেশি সহযোগিতা করবে।

বইটিতে যুক্ত করা হয়েছে ইমেজ প্রসেসিং এর অ্যাপ্লিকেশন ভিত্তিক রোবট তৈরির অধ্যায় যেগুলোইমেজ প্রসেসিং বুঝে সেই জ্ঞানকে কাজে লাগানোর সুযোগ তৈরি করবে। ম্যাটল্যাব নিয়ে যাদের প্রাথমিক ধারণা নেই তাদের জন্যেও একটি পূর্ণাঙ্গ অধ্যায় সংযোযিত হয়েছে। সর্বোপরি অ্যাকাডেমিশিয়ান থেকে শুরু করে রোবট বিষয়ক উৎসাহী পর্যন্ত সকলে এই বইটি পড়ে রোবট এর সর্বাধুনিক প্রযুক্তিতে দক্ষতা অর্জনের পথে অনেকটাই এগিয়ে যাবে বলে আশা করা যায়।

বইটিতে বাহুল্যতাকে একেবারেই পরিহার করা হয়েছে। এ. বি. এম. রেজাউল ইসলাম এবং রিনি ঈশান খুশবু রচিত ১২০ পৃষ্ঠার এ বইটির মূল্য রাখা হয়েছে ১৫০ টাকা।

বের হয়েছে সিসটেক আইসিটি টেস্ট পেপারস মেইড ইজি
উচ্চ মাধ্যমিক (সাধারণ ও আলিম) শ্রেণির শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা ২০১৬ এর জন্য প্রণীত এই বইটিতে দেশের সেরা কলেজ ও মাদ্রাসাসমূহের নির্বাচনি পরীক্ষার প্রশ্ন ও সমাধান দেয়া হয়েছে। সৃজনশীল ও সাধারণ উভয় ধরনের পরীক্ষার্থীদের উপযোগী করে বইটি প্রকাশ করা হয়েছে। এক্সক্লুসিভ অনুশীলনমূলক এই বইটিতে সর্বাধিক প্রশ্ন, নির্ভুল সমাধান, অধ্যায়ভিত্তিক সমাধান, গাণিতিক সমস্যার সমাধান, চূড়ান্ত সাজেশন্স, সৃজনশীল এবং এমসিকিউ যুক্ত করা হয়েছে।

টেস্টপেপারটির বৈশিষ্ট্য

  • দেশের সেরা কলেজ ও মাদ্রাসাসমূহের টেস্ট পরীক্ষার প্রশ্নোত্তর।
  • সৃজনশীল ও এমসিকিউ প্রশ্নোত্তর।
  • ১৩০০ এর অধিক সৃজনশীল প্রশ্নসমূহ হতে গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্নের অধ্যায়ের টপিকভিত্তিক সাধারণ প্রশ্ন হিসেবে উপস্থাপন (সম্পূর্ণ ব্যতিক্রমধর্মী এ পদ্ধতির কারণে শিক্ষার্থীরা সহজেই শিখতে পারবে)।
  • সহজ ও সাবলিল ভাষায় রচিত।
  • বোর্ডের সর্বশেষ নীতিমালা অনুসরণ করে রচিত।
  • মাস্টার ট্রেইনার প্রশিক্ষণে প্রদত্ত গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন সংবলিত।

সিসটেক এর প্রকাশনাসমূহের প্রাপ্তিস্থান
সিসটেক পাবলিকেশন্স থেকে প্রকাশিত বিভিন্ন বই, ইন্টারঅ্যাকটিভ মাল্টিমিডিয়া কোর্সওয়্যার এবং অন্যান্য সকল ডিজিটাল প্রকাশনাসমূহ এখন আপনি দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে সংগ্রহ করতে পারেন। সকলের সুবিধার্থে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে ছড়িয়ে থাকা প্রাপ্তিস্থানগুলোর নাম এখানে উল্লেখ করা হলো।

১) সিসটেক হেড অফিস, বাড়ী # ২১, রোড নং # ৩১, সেক্টর # ৭, উওরা, ঢাকা। মোবা : ০১৭১৪১৮৪৮৪৪।
২) হক লাইব্রেরি, নীলক্ষেত, ঢাকা। মোবা : ০১৭৩৫৭৪২৯০৮।
৩) তোফাজ্জল লাইব্রেরি, ফার্মগেট, ঢাকা।
৪) আইডিয়াল লাইব্রেরি, কান্দিরপাড়, কুমিল্লা। মোবা : ০১৬৮০৪৫৩৫১৯।
৫) মাস্টার লাইব্রেরি, চাঁদপুর। মোবা : ০১৮১৬৫৪৪৯৩৬।
৬) মডার্ণ লাইব্রেরি, ফেনী। মোবা : ০১৮১৬৫৫৮৫১১।
৭) বুক লাইন, আন্দরকিল্লা, চট্টগ্রাম। মোবা : ০১৮২০২৪৪৯৫৭।
৮) অন্বেষা লাইব্রেরি, কক্সবাজার। মোবা : ০১৭১৫৩৫৬১৬০।
৯) গাজী প্রকাশনি, রাঙামাটি। মোবা : ০১৭৩২৯২০২১৯।
১০) এ, ই, লাইব্রেরী, নরসিংদী। মোবা : ০১৭১৫৭৫৮৩২৬।
১১) টাউন লাইব্রেরি, লক্ষ্মীপুর। মোবা : ০১৭১৫৬০৮১৫১।
১২) হক লাইব্রেরি, চৌমুহনী, নোয়াখালী। মোবা : ০১৭১৯৬৯৭১১৯।
১৩) সেন্ট্রাল লাইব্রেরী, জিন্দা বাজার, সিলেট। মোবা : ০১৭১১৪৮৪৫৯৫।
১৪) পপি লাইব্রেরি, জিন্দাবাজার, সিলেট। মোবা : ০১৭১১৮৩৮৬২৩।
১৫) মিতালী লাইব্রেরি, মৌলভীবাজার। মোবা : ০১৭১৬০৮০৮০৫।
১৬) শাহজালাল লাইব্রেরি, হবিগঞ্জ। মোবা : ০১৭২৬৭৪৪৮১০।
১৭) তাজ লাইব্রেরি, বাহ্মণবাড়ীয়া। মোবা : ০১৭১১৭৩৭৬৩২।
১৮) ইকরা লাইব্রেরি, চান্দনা চৌরাস্তা, গাজীপুর। মোবা : ০১৫৫২২৮৯৭৩৬।
১৯) মাদানী লাইব্রেরি, ময়মনসিংহ। মোবা : ০১৭১১৩৭৩১৮১।
২০) আকন্দ লাইব্রেরী, ময়মনসিংহ। মোবা : ০১৯১২৭৭৩২৯৭।
২১) হাশেমিয়া লাইব্রেরি, নেত্রকোনা। মোবা : ০১৭১১১৪২৪২২।
২২) আহম্মদিয়া লাইব্রেরি, শেরপুর। মোবা : ০১৭১০৯৫২৭৮৬।
২৩) পাক লাইব্রেরি, দয়াময়ী, জামালপুর। মোবা : ০১৭১২০৮৫০৬৫।
২৪) সঞ্চিতা লাইব্রেরি, ভিক্টোরিয়া রোড, টাঙ্গাইল। মোবা : ০১৭১৫৪৭৯৯৮৭।
২৫) বাংলাদেশ লাইব্রেরী, ধনবাড়ী, টাঙ্গাইল। মোবা : ০১৯১৬৭৬৬২৭৪।
২৬) হাশেম বুক প্যালেস, সিরাজগঞ্জ। মোবা : ০১৭১৭৪২৩৬২৪।
২৭) বাবুল লাইব্রেরি, পাবনা। মোবা : ০১৭৪৩৪৪২৪৬২।
২৮) বাংলাদেশ লাইব্রেরি, আলাইপুর, নাটোর। মোবা : ০১৭১৯৮২৩৬৮৮।
২৯) পদ্মা বই বিতান, সোনা দিঘির মোড়, রাজশাহী। মোবা : ০১৭১১০০০২০২।
৩০) বাংলাদেশ লাইব্রেরি, নাটোর। মোবা : ০১৭১৯৮২৩৬৮৮।
৩১) আজাদ লাইব্রেরি, রাজশাহী। মোবা : ০১৭২১১০১৬২৫।
৩২) চাপাই বুক ডিপো, চাপাইনবাবগঞ্জ। মোবা : ০১৭৩০১৭১৫২১।
৩৩) গ্রীণ লাইব্রেরি, কাচারী মোড়, লাইব্রেরি পট্টি, নওগাঁ। মোবা : ০১৭১৬৩২২৫৭৩।
৩৪) শহিদ লাইব্রেরী, নওগাঁ।
৩৫) বুক সেন্টার, বগুড়া। মোবা : ০১৭১৩৭৪১৭৩৩।
৩৬) কোরআন হাদিস মঞ্জিল লাইব্রেরী, বগুড়া। মোবা : ০১৭১১৯৪৫২৯৫।
৩৭) নর্থ বেঙ্গল লাইব্রেরি, জয়পুরহাট। মোবা : ০১৭২২৪০০৬২৬।
৩৮) আধুনিক লাইব্রেরি, গাইবান্ধা। মোবা : ০১৭১২৫৬৮৪২৬।
৩৯) বিরল লাইব্রেরি, মুনসীপাড়া, দিনাজপুর। মোবা : ০১৭৫১৮৪৩৩৬১।
৪০) ফারুক লাইব্রেরি, রংপুর। মোবা : ০১১৯০৭১৬৯০৬।
৪১) ইস্ট বেঙ্গল লাইব্রেরী, রংপুর। মোবা : ০১৭১১২০৬৬২৮।
৪২) হাসান বুক ডিপো, কুড়িগ্রাম। মোবা : ০১৭১৩২০০৬২৩।
৪৩) জামান বুক ডিপো, লালমনিরহাট। মোবা : ০১৭১৬২৪২০১৪।
৪৪) জ্ঞানাঙ্কুর লাইব্রেরি, নীলফামারী। মোবা : ০১৭১২৮১৮৯৬০।
৪৫) ফারুক লাইব্রেরি, ঠাকুরগাঁও। মোবা : ০১৭১৭২৯০৬৫৮।
৪৬) নিউ সখিনা লাইব্রেরি, পঞ্চগড়। মোবা : ০১৭১২৭৭৬০১৬।
৪৭) আজাদ লাইব্রেরি, মানিকগঞ্জ। মোবা : ০১৭১১১০২৩৩৭।
৪৮) সোনালী লাইব্রেরি, রাজবাড়ী। মোবা : ০১৭১৭১৯৫৯৬৬।
৪৯) মোসলেম লাইব্রেরি, ফরিদপুর। মোবা : ০১৮১৯৪৭৫৬৪০।
৫০) স্টুডেন্ট লাইব্রেরি, শরিয়তপুর। মোবা : ০১৭১৫৪১২৩৯৮।
৫১) নেছারিয়া লাইব্রেরি, মাদারীপুর। মোবা : ০১৭১৩৫৩৯৮৯৯।
৫২) জ্ঞান বিকাশ লাইব্রেরি, গোপালগঞ্জ। মোবা : ০১৭১৬৯৫০৫৪৫।
৫৩) নিউ রঞ্জন লাইব্রেরি, মাগুরা। মোবা : ০১১৯৯০৯১৪৩১।
৫৪) ইসলামিয়া লাইব্রেরি, ঝিনাইদহ। মোবা : ০১৭১৯২৭৩৬৬১।
৫৫) জ্ঞান কোষ লাইব্রেরি, কুষ্টিয়া। মোবা : ০১৭১২৭৩৫৫৮৫।
৫৬) বই নিকেতন, দড়াটানা, যশোর। মোবা : ০১৭২১১৮৩৮৭০।
৫৭) পপুলার লাইব্রেরি, সাতক্ষীরা। মোবা : ০১৯১৪৩৭২৬৪৭।
৫৮) সোহাগ লাইব্রেরি, খুলনা। মোবা : ০১৭১২৫৯২৭৮১।
৫৯) আদর্শ লাইব্রেরি, বাগেরহাট। মোবা : ০১৭১১১৮৪৫১৯।
৬০) ইসলামিয়া লাইব্রেরি, বরিশাল। মোবা : ০১৭১১২৬৪৯৬৩।
৬১) প্যারাডাইস লাইব্রেরি, ভোলা। মোবা : ০১৭২১০৪৮৬৭১।
৬২) নেছারিয়া লাইব্রেরি, পটুয়াখালী।
৬৩) আদি নূরজাহান লাইব্রেরি, বরগুনা। মোবা : ০১৭৮৫৯৫৭৪৩১।

উচ্চ মাধ্যমিকের আইসিটি বিষয়ের ইন্টারঅ্যাকটিভ মাল্টিমিডিয়া কোর্সওয়্যার-এর উদ্বোধন
বর্তমানে একাদশ-দ্বাদশ শ্রেণিতে আবশ্যিক হিসেবে চালু হওয়া ‘তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি’ বিষয়টি সহজে ভিজ্যুয়ালি শেখার জন্য সিসটেক পাবলিকেশন্স এর উদ্যোগে এবং সিসটেক ডিজিটাল লিমিটেড এর সহযোগিতায় দেশে এই প্রথমবারের মতো উচ্চ মাধ্যমিকের কোনো বিষয়ের উপর ইন্টারঅ্যাকটিভ মাল্টিমিডিয়া কোর্সওয়্যার তৈরি করা হয়েছে।

গত ৩০ নভেম্বর ২০১৫ তে রাজধানীর আগারগাঁওস্থ ন্যাশনাল লাইব্রেরি অডিটরিয়ামে কোর্সওয়্যারটির উদ্বোধন করেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক। উক্ত অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার এন্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেস (বেসিস) এর সভাপতি জনাব শামীম আহসান, জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড এর চেয়ারম্যান অধ্যাপক নারায়ণ চন্দ্র পাল এবং সরকারি প্রতিষ্ঠান ডিরেক্টরেট অব আর্কাইভস এন্ড লাইব্রেরিজ এর পরিচালক ওয়াদুদুল বারি চৌধুরী।


প্রোগ্রামের ভিডিও দেখতে ক্লিক করুন

মন্ত্রী সিসটেক পাবলিকেশন্স এবং সিসটেক ডিজিটাল লিঃ এর এই উদ্যোগের ভূঁয়সী প্রশংসা করে বলেন, উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ের দেশের লাখ লাখ আইসিটি শিক্ষার্থীর জন্য এটি নিঃসন্দেহে একটি অনন্য উদ্যোগ। এর মাধ্যমে তাঁরা ঘরে বসেই কম্পিউটার ব্যবহার করে পাঠ্যপুস্তকের বিষয়বস্তুকে আত্মস্থ করতে সক্ষম হবে। ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণে এটি সহায়ক ভূমিকা পালন করবে।

বেসিস এর সভাপতি শামীম আহসান বলেন, আমাদের দেশের বিশাল এই তরুণ জনগোষ্ঠীকে জনসম্পদে পরিণত করার জন্য আইসিটি শিক্ষার ভূমিকা অপরিহার্য। বেশ ক’ বছর যাবত বেসিস এ বিষয়ে কাজ করে যাচ্ছে। সিসটেক এর এই উদ্যোগ আমাদেরকে এ কার্যক্রমকে আরও গতিশীল করতে সহায়তা করবে।

জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড এর চেয়ারম্যান অধ্যাপক নারায়ণ চন্দ্র পাল শিক্ষার্থীদের জন্য এ ধরনের উদ্যোগ নেয়ার জন্য সিসটেককে ধন্যবাদ জানান।

ডিরেক্টরেট অব আর্কাইভস এন্ড লাইব্রেরিজ এর পরিচালক ওয়াদুদুল বারি চৌধুরী আইসিটি পণ্যে কপিরাইটের গুরুত্ব তুলে ধরে এক্ষেত্রে সরকারের কার্যক্রম ও ভাবনাগুলো তুলে ধরেন।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সিসটেক পাবলিকেশন্স ও সিসটেক ডিজিটাল লিমিটেড এর চেয়ারম্যান মাহবুবুর রহমান। অনুষ্ঠানের সঞ্চালনায় ছিলেন সিসটেক ডিজিটাল লিমিটেড এর সিইও এবং বেসিস এর ভাইস প্রেসিডেন্ট এম. রাশিদুল হাসান।

দুইটি সিডিতে প্রকাশিত এই কোর্সওয়্যারটিতে উচ্চ মাধ্যমিক “তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি” বিষয়টিকে অডিও, ভিডিও, প্রেজেন্টেশন, অ্যানিমেশন প্রভৃতির মাধ্যমে আকার্ষণীয়ভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে। প্রোগ্রামিং এর অধ্যায়গুলোকে সহজবোধ্যরূপে লেকচারের মাধ্যমে এবং হাতে কলমে শেখানোর ব্যবস্থা করা হয়েছে। শিক্ষকগণ তাদের ক্লাসে মাল্টিমিডিয়া প্রজেক্টরের মাধ্যমে এই কোর্সওয়্যার ব্যবহার করে খুব সহজের ছাত্রছাত্রীদেরকে প্রশিক্ষণ দিতে পারবেন। এছাড়া শিক্ষার্থীগণ নিজেরাই এর মাধ্যমে তাদের পড়ার বিষয়গুলোকে আত্মস্থ করতে পারবে। অনুষ্ঠানে উপস্থিত সকলকে এই ইন্টারঅ্যাকটিভ কোর্সওয়্যারটির সৌজন্য কপি প্রদান করা হয়।

৮ ডিসেম্বর ঢাকায় ফ্রিল্যান্সার সম্মেলন
আগামী ৮ ডিসেম্বর রাজধানীর রিপোটার্স ইউনিটিতে শুরু হচ্ছে ‘ফ্রিল্যান্সারস মিট-২০১৫’। দুটি সেশনে অনুষ্ঠেয় মুক্তপেশাজীবীদের এই সম্মেলনের প্রথম পর্বে ফ্রিল্যান্সিং নিয়ে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করবেন ওয়ার্ল্ড ইনফরমেশন টেকনোলজি সার্ভিসেস (ডব্লিউটিআইএস) এর প্রেসিডেন্ট সান্টিয়াগো গোতিয়ারেজ। আর দ্বিতীয় পর্বে থাকবে ফ্রিল্যান্সিং সম্পর্কিত কারিগরি বিষয়গুলো নিয়ে আলোচনা। সম্মেলনের আয়োজক সূত্র জানিয়েছে, ফ্রিল্যান্সারস মিটের উদ্বোধন করবেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক।

ড্যাফোডিল গ্রুপের চেয়ারম্যান মো. সবুর খানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন অ্যাকসেঞ্চার জাপানের সাবেক প্রেসিডেন্ট ক্লাইড উনো, বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেস (বেসিস) সভাপতি শামীম আহসান, বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতির (বিসিএস) সভাপতি এ এইচ এম মাহফুজুল আরিফ, বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব কল সেন্টার অ্যান্ড আউটসোর্সিং (বাক্য) এর সভাপতি আহমেদুল হক ববিসহ আরও অনেকে।

তথ্যসূত্র: http://www.natunbarta.com/

হাতের মুঠোয় ডিএসইর সব তথ্য
হাতের মুঠোয় ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) সব তথ্য পেতে মোবাইল অ্যাপ উন্মোচন করেছেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক। এই অ্যাপটির মাধ্যমে ডিএসইর সব তথ্য পাওয়া যাবে। ২৫ নভেম্বর মতিঝিলে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ অডিটোরিয়ামে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে ‘ডিএসই ইনফো’ নামে মোবাইল অ্যাপটি উদ্বোধন করেন প্রতিমন্ত্রী। এতদিন ডেস্কটপ ও ল্যাপটপ নির্ভর হলেও এই অ্যাপের মাধ্যমে গ্রাহকরা বিশ্বের যেখানেই থাকুক ডিএসইর শেয়ারের সব তথ্য জানতে পারবেন।

গুগল প্লে স্টোর থেকে ডাউনলোড করে অ্যান্ড্রয়েড মোবাইল ফোন ব্যবহারকারীরা অ্যাপটি ব্যবহার করতে পারবেন। অ্যাপটি তৈরি করেছে আইসিটি বিভাগ ও ডিএসই। অ্যাপের মাধ্যমে বর্তমানে শুধু শেয়ার বাজারের তথ্য জানা গেলেও ভবিষতে শেয়ার কেনা-বেচারও ফিচার সংযুক্ত করা হবে।

অ্যাপটি খুব সহজে ডিএসই’র নিবন্ধিত কোম্পানির তথ্য দেবে। ‘এ টু জেড’ অপশনে থাকা কোম্পানির বিস্তারিত তথ্য জানা যাবে। হোম পাতায় থাকবে মার্কেটের সেরা ২০ প্রতিষ্ঠানের তথ্যও। সর্বশেষ বাজার দর, ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের সর্বশেষ খবরও পাওয়া যাবে অ্যাপটিতে। এছাড়া থাকছে, মাই পোর্ট ফোলিও, অন্যান্য শেয়ারের সঙ্গে তুলনামূলক ফিচার।

তথ্যসূত্র: http://www.banglanews24.com/

বাংলাদেশভিত্তিক সার্চ ইঞ্জিন চরকি
হালের স্মার্টফোনের বাজার দর জানতে চান? দেশের রাজনৈতিক অবস্থাই বা কী? অথবা ব্যস্ততাহীন সময়ে ওয়েব ব্রাউজিং করে মন্দ হয় না ভাবছেন? গুগল বা বিং সার্চ ইঞ্জিনের দ্বারস্থ হওয়ার আগে একটা ‘ঢু মেরে’ আসতে পারেন চরকি ডটকম-এ।

গুগল, বিং বা ইয়াহুর মতো বহুল ব্যবহৃত সার্চ ইঞ্জিনগুলোর কাজ করে বিশ্ব বাজার নিয়ে। ঠিক বাজারও নয়, বিশ্বের যাবতীয় বিষয় নিয়ে (বাজার তারই একটি অংশমাত্র)। আর চরকির মাথা যেন ‘চক্কর খাচ্ছে’ বাংলাদেশ নিয়েই। আরো পিনপয়েন্ট করে বললে দেশি পণ্য নিয়ে। বাংলাদেশের পণ্য আর কনটেন্ট-এর ব্যবহারকারীরা বাংলাদেশের বাজারে যা খোঁজেন এমন জিনিসের পাত্তা লাগানোই নতুন এই সার্চ ইঞ্জিন চরকির কাজ।

সার্চ ইঞ্জিন হিসেবে চরকির সবচেয়ে বড় বৈশিষ্ট্য বলা যেতে পারে এর ‘ক্যাটেগরি সার্চ’ সুবিধা। চরকিতে আপাতত, ওয়েব, প্রোডাক্ট আর নিউজ এই তিন শ্রেণিতে সার্চ করতে পারবেন ব্যবহারকারী। ওয়েব ক্যাটেগরিতে সার্চ করলে দেশের বিভিন্ন ওয়েবসাইটের কনটেন্ট মিলবে। নিউজ ক্যাটেগরিতে মিলবে বিভিন্ন অনলাইন সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদনের লিংক। আর প্রোডাক্ট ক্যাটেগরিতে মিলবে বিভিন্ন পণ্যের সন্ধান।
তথ্যসূত্র: http://bangla.bdnews24.com/

‘উইন্ডোজ ১০’ এর বই এখন বাজারে
উইন্ডোজ ১০ হলো উইন্ডোজ অপারেটিং সিস্টেমের সর্বশেষ সংস্করণ। উইন্ডোজ ১০ কে মাইক্রোসফট একটি ‘ইউনিভার্সাল’ অ্যাপ্লিকেশন আর্কিটেকচার রূপে বর্ণনা করেছে। এর মেট্রো স্টাইল অ্যাপগুলোকে এমনভাবে ডিজাইন করা যায় যেগুলো পিসি, ট্যাবলেট, স্মার্টফোন, এমবেডেড সিস্টেম, এক্সবক্স ওয়ান, সারফেস হাব এবং হলোলেন্স এর মতো বিভিন্ন ধরনের প্রোডাক্টে ব্যবহার করা যাবে। মাউস-ওরিয়েন্টেড এবং টাচস্ক্রিন-অপটিমাইজড দুই ধরনের ইন্টারফেসেই আপারেটিং সিস্টেমটি কাজ করে। এর ইন্টারফেসের পরিবর্তনটি প্রথমেই চোখে ধরা পড়ে। উইন্ডোজ ৭ এবং উইন্ডোজ ৮ এর সুবিধাগুলোকে মাথায় রেখে এবার উইন্ডোজ ১০ এ পুরনো স্টার্ট মেনুকে ফিরিয়ে আনা হয়েছে। সেই সাথে এটিতে উইন্ডোজ ৮ এর টাইলস এর স্টাইলটিকেও অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। উইন্ডোজ ১০ এ আরও অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে টাস্ক ভিউ, একটি ভার্চুয়াল ডেস্কটপ সিস্টেম, মাইক্রোসফট এজ ওয়েব ব্রাউজার ও অন্যান্য নতুন ও আপডেটকৃত অ্যাপ্লিকেশনসমূহ, ফিঙ্গারপ্রিন্ট ও ফেইস রিকগনিশন লগইন এর জন্য সমন্বিত সমর্থন, এন্টারপ্রাইজ পরিবেশের জন্য নতুন সিকিউরিটি ফিচারসমূহ, গেমসের জন্য অপারেটিং সিস্টেমের গ্রাফিক্স সক্ষমতার উন্নতি ঘটাতে রাখা হয়েছে ডিরেক্টএক্স ১২ এবং WDDM 2.0। উইন্ডোজ ১০-এর নতুন আকর্ষণ কর্টানা (Cortana)। ব্যক্তিগত ভার্চুয়াল সহকারী কর্টানা কে উইন্ডোজ ১০-এর সাথে উন্মুক্ত করেছে মাইক্রোসফট। কর্টানা কে প্রশ্ন করে তা থেকে জবাব পাবেন ব্যবহারকারীরা। বহু কাজে ভয়েস কমান্ডের মাধ্যমে কর্টানা ব্যবহার করতে পারবেন। কর্টানার সঙ্গে রয়েছে একটি ইউনিভার্সাল সার্চ বক্স। সব ফাইল, অ্যাপ এবং সেটিংসয়ে সার্চ দেওয়া যাবে এর মাধ্যমে। উইন্ডোজ ১০ এ উইন্ডোজ স্টোরটি অ্যাপস, গ্রুভ মিউজিক (পুরনো এক্সবক্স মিউজিক) এবং মুভি এন্ড টিভি (পুরনো এক্সবক্স ভিডিও) এর সমন্বিত স্টোরফ্রন্ট হিসেবে কাজ করছে। আর এসব বিষয়গুলোকে তুলে ধরতে শুধুমাত্র কমপিউটার প্রকাশনায় দেশের সর্ববৃহৎ প্রতিষ্ঠান সিসটেক পাবলিকেশন্স সম্প্রতি বাজারে এনেছে ‘উইন্ডোজ ১০’ বইটি।

জনপ্রিয় আইসিসিট লেখক মাহবুবুর রহমান রচিত  ‘উইন্ডোজ ১০’ বইটিকে মোট ২০টি অধ্যায়ে বিভক্ত করা হয়েছে। এগুলো হলো- মাইক্রোসফট উইন্ডোজ, উইন্ডোজ ১০ সম্পর্কে আলোচনা, উইন্ডোজ ১০ ইন্সটল করা, উইন্ডোজের প্রয়োজনীয় কিছু বিষয়, কর্টানা এর ব্যবহার, উইন্ডোজ ১০ এক্সপ্লোর করা, কন্ট্রোল প্যানেলের আইটেমগুলো এককভাবে অ্যাকসেস করা, উইন্ডোজ ১০ এ উইন্ডো ও ফোল্ডারসমূহ অ্যাকসেস করা, উইন্ডোজ ১০ এ ফাইল ও ফোল্ডারসমূহ ম্যানেজ করা, ভিজ্যুয়াল এলিমেন্টসমূহ পরিবর্ত করা এবং সিস্টেম সেটিং, ডিস্ক ড্রাইভ নিয়ে আলোচনা, হার্ডওয়্যার কনফিগারেশন, নেটওয়ার্ক ম্যানেজমেন্ট ও হোমগ্রুপ ফিচার, ডিভাইস ম্যানেজমেন্ট, সিকিউরিটি এবং মেইনটেনেন্স, ইউজার অ্যাকাউন্টসমূহ ম্যানেজ করা, স্টার্ট স্ক্রিনের অ্যাপস নিয়ে আলোচনা, বহুল ব্যবহৃত কিছু অ্যাপস নিয়ে আলোচনা, বিটলকার ড্রাইভ এনক্রিপশন, স্নিপিং টুল নিয়ে আলোচনা, ইন্টারনেট ব্রাউজিং ও মাইক্রোসফট এজ।

বইটিতে উইন্ডোজ ১০ এর উপর সর্বাধিক তথ্য সরবরাহের চেষ্টা করা হয়েছে। বইটির মূল বৈশিষ্ট্যই হলো এটি একেবারে হাতে-কলমে শেখানোর মতে করে রচিত। বইটিতে বাহুল্যতাকে একেবারেই পরিহার করা হয়েছে। ৩৭৬ পৃষ্ঠার এ বইটির মূল্য রাখা হয়েছে ৩০০ টাকা।

মোবাইল ইন্টারনেট ব্যবহারকারী ৫ কোটি ছাড়ালো
বাংলাদেশে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা পাঁচ কোটি ২২ লাখ ১৯ হাজার, যার মধ্যে মোবাইল ইন্টারনেট ব্যবহারকারী পাঁচ কোটিরও বেশি। আর মোবাইল গ্রাহক সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৩ কোটি আট লাখ ৪৩ হাজারে। বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি) সর্বশেষ আগস্ট মাসের মোবাইল ও ইন্টারনেট গ্রাহক সংখ্যার এ তথ্য প্রকাশ করেছে। গত ০১ অক্টোবর প্রকাশিত বিটিআরসির হালনাগাদ তথ্য অনুযায়ী, গ্রামীণফোনের গ্রাহক সংখ্যা পাঁচ কোটি ৫০ লাখ ৪০ হাজার। এই সময়ে বাংলালিংকের গ্রাহক সংখ্যা তিন কোটি ২৮ লাখ ৭৯ হাজার, রবির দুই কোটি ৮৩ লাখ ১৬ হাজার, এয়ারটেলের ৯৩ লাখ ৯২ হাজার ও সিটিসেলের ১১ লাখ ৩৮ হাজার। একমাত্র রাষ্ট্রায়াত্ত কোম্পানি টেলিটকের গ্রাহক সংখ্যা হয়েছে ৪০ লাখ ৭৯ হাজার।

বিটিআরসির হিসাবে মোবাইলে ইন্টারনেট গ্রাহকের সংখ্যা পাঁচ কোটি সাত লাখ ৪৩ হাজার, আইএসপি ও পিএসটিএন ইন্টারনেট গ্রাহক ১৩ লাখ আট হাজার। আর ওয়াইম্যাক্স ইন্টারনেটের গ্রাহক এক লাখ ৬৮ হাজার।

বিটিআরসির তথ্যানুযায়ী, গত জুলাই মাস শেষে দেশে মোবাইল ফোনের গ্রাহক সংখ্যা ছিলো ১২ কোটি ৮৭ লাখ। আর ইন্টারনেট গ্রাহক ছিল পাঁচ কেটি সাত লাখ সাত হাজার। এরমধ্যে মোবাইল ইন্টারনেট গ্রাহক ছিলো চার কোটি ৯২ লাখ ৪১ হাজার।
তথ্যসূত্র : http://banglanews24.com/

ইউনিয়ন তথ্যকেন্দ্রে মিলবে বিমানের টিকিট
এখন থেকে ইউনিয়ন ও পৌর ডিজিটাল সেন্টার থেকে  বাংলাদেশ বিমানের অভ্যন্তরীণ রুটের টিকিট পাওয়া যাবে। আপাতত দেশের ১১টি জেলার ১০০টি ডিজিটাল সেন্টারে এ সেবা পাওয়া যাবে। পর্যায়ক্রমে এ সেবা দেশের সব ডিজিটাল সেন্টার থেকে পাওয়া যাবে বলেও জানানো হয়। সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস ও প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এক্সেস টু ইনফরমেশন (এটুআই) প্রকল্পের মধ্যে এ বিষয়ে একটি সমঝোতা চুক্তি স্বাক্ষর হয়েছে। চুক্তির আওতায় দেশের যেসব এলাকায় বিমানবন্দর রয়েছে সেসব এলাকার সাধারণ মানুষ ইউনিয়ন পর্যায়ে বসেই ডিজিটাল সেন্টার থেকে বিমানের টিকিট করতে পারবেন।
তথ্যসূত্র : www.natunbarta.com

দুইশ’ কোটি লাইন কোডের গুগল
নিজেদের ইন্টারনেট সেবা সচল রাখতে আনুমানিক দুইশ’ কোটি ‘লাইন অফ কোড’-এর সফটওয়্যারের উপর নির্ভর ওয়েব জায়ান্ট গুগল। সম্প্রতি প্রতিষ্ঠানটির এক কর্মকর্তার বক্তব্য থেকে জানা গেছে এই তথ্য। এক প্রতিবেদনে প্রযুক্তিবিষয়ক সাইট ওয়্যার্ড ডটকম জানিয়েছে, সোমবার যুক্তরাষ্ট্রের সিলিকন ভ্যালিতে আয়োজিত এক প্রকৌশলী সম্মেলনে গুগল কর্মকর্তা র‌্যাচেল পটভিন এই তথ্য জানান।

পটভিন জানিয়েছেন, গুগল সার্চ থেকে শুরু করে জিমেইল, গুগল ম্যাপস, ইউটিউব, গুগল ডকস, গুগল প্লাস, গুগল ক্যালেন্ডার ইত্যাদি যাবতীয় ইন্টারনেট সেবা সচল রাখতে যে সফটওয়্যার ব্যবহার করা হয়, সেগুলো আনুমানিক দুইশ’ কোটি ‘লাইন অফ কোড’-এর সাহায্য নিয়ে থাকে।

ওয়্যার্ডের তথ্য অনুযায়ী, গুগলের সব ইন্টারনেট সেবা ওই দুইশ’ কোটি লাইনের কোডের উপর নির্ভর করেই গড়ে উঠেছে এবং প্রতিষ্ঠানটি এক স্থানেই সব কোড সংরক্ষণ করে থাকে। আর ওই কোড সংরক্ষণাগারে গুগলের ২৫ হাজার প্রকৌশলীর সবাই প্রবেশ করতে পারেন।

পটভিন এ প্রসঙ্গে জানিয়েছেন, তার বিশ্বাস এটিই পৃথিবীর সবচেয়ে বৃহৎ কোড সংরক্ষণাগার যা এখন পর্যন্ত সচল আছে। কোডগুলো ব্যবহারের জন্য গুগল ‘পাইপার’ নামের একটি নিজস্ব ‘ভার্সন কন্ট্রোল সিস্টেম’-ও গড়ে তুলেছে বলে জানিয়েছে ওয়্যার্ড ডটকম।

পটভিন জানিয়েছেন, এই নিয়ন্ত্রণ প্রক্রিয়াটি গুগলের দশটি ডেটা সেন্টারের মধ্যে আবর্তিত হতে থাকে এবং প্রাতিষ্ঠানিক কার্যালয়ে কর্মরত প্রকৌশলীদের যখন সফটওয়্যারের প্রয়োজন পড়ে তা সঠিকভাবে তার কম্পিউটারে পৌঁছে দেওয়ার দায়িত্বটিও পাইপার পালন করে থাকে। তবে গুগলের সব প্রকৌশলীর দুইশ’ কোটি লাইন কোড-এর সফটওয়্যারের অ্যাক্সেস পান না বলে জানিয়েছেন পটভিন, কারণ এর মধ্যে কিছু উচ্চমাত্রার স্পর্শকাতর কোডও রয়েছে।

ওয়্যার্ডের তথ্য অনুযায়ী, সুষ্ঠভাবে কাজ সম্পাদনের জন্য নিয়ন্ত্রণ প্রক্রিয়া পাইপারকে প্রতিদিন প্রায় ৮৫ টেরাবাইট ডেটা আদান-প্রদান করতে হয়। এ ছাড়াও গুগলের ২৫ হাজার প্রকৌশলী কোড সংরক্ষণাগারে প্রতিদিন প্রায় ৪৫ হাজার পরিবর্তন সাধন করেন বলেও জানিয়েছে ওয়্যার্ড।
তথ্যসূত্র : http://bangla.bdnews24.com/

বের হয়েছে! বের হয়েছে! একাদশ ও দ্বাদশ শ্রেণির ব্যবহারিক তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি
বাংলাদেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় আইটি লেখক বেস্ট সেলিং অথোর মাহবুবুর রহমান কর্তৃক প্রণীত একাদশ ও দ্বাদশ শ্রেণির ব্যবহারিক তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বইটির বৈশিষ্ট্য :

    • বোর্ডের সিলেবাস অনুযায়ী সহজ ভাষায় রচিত।
    • এনসিটিবি অনুমোদিত সব বইয়ের ব্যবহারিক সমস্যার সমাধান।
    • বিগত ১২ বছরের বোর্ড প্রশ্নের প্রোগ্রামিং সমস্যার সমাধান।
    • উইন্ডোজ এক্সপি ও উইন্ডোজ-৭ ভার্সনের জন্য আলাদা বর্ণনা
    • সিডি এবং ওয়েবে সব সোর্স কোড পরিবেশিত।
    • সর্বাধিক সমস্যার সমাধান ছাড়াও নিজে নিজে করার জন্য অনেক সমস্যার নির্দেশনা ।
    • প্র্যাকটিক্যাল খাতা (নোটবুক) লেখার বর্ণনা।
    • ডায়ালগ বক্সের স্ক্রিন প্রিন্ট নেয়ার বর্ণনা।
    • নবীনদের জন্য প্রাথমিক (হাতে খড়ি) ব্যবহারিক বর্ণনা ।
    • সিলেবাস অনুযায়ী ধারাবাহিক বর্ণনা ।
  • সঠিক নম্বর বণ্টন অনুযায়ী ভারসাম্যপূর্ণ লেখা ।

সঠিক নিয়মানুযায়ি বোর্ড নির্দেশিত ফর্মেট অনুযায়ি – প্র্যাকটিক্যাল খাতাও পাওয়া যাচ্ছে।

Untitled

Untitled